যৌথ সংসারে কারো উপার্জন হারাম হলে করণীয়


[লিখেছেন jibaitunnoor, November 14, 2020 05:21 am ]

প্রশ্ন:

আমি সবল, সুস্থ, প্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে। আমার উপার্জন সম্পূর্ণ হালাল। বাবার যৌথ পরিবারে থাকলে তার হারাম উপার্জন খেতে হয় কিংবা ব্যবহার করতে হয়। তাই আমি আলাদা বাসা নেই। তবে মাঝে মাঝে বাবা-মায়ের কাছে যাই। তাদের ভাল-মন্দ খোঁজ-খবর নেই। খিদমত করি। কিন্তু বাবার বাসার এক গ্লাস পানিও পান করি না।

বাবা-মা খুব বলেন: আমাদের সাথে থাক। আমরা যা খাই তা খাও! আমি তাদের কথা শুনি না। এতে তারা খুব কষ্ট পান। এক্ষেত্রে বাবা-মায়ের কথা মানতে হবে কি না? আর তাদের থেকে আমার আলাদা হয়ে যাওয়া ঠিক আছে কি না?

উত্তর:

হারাম মাল উপার্জন করা যেমন হারাম তেমনি সুস্থ, সবল, প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তির জন্য তা ব্যবহার করা বা খাওয়াও হারাম। তাছাড়া, শরীয়তের অপর একটি মূলনীতি হলো, আল্লাহর নাফরমানী হয় এমন বিষয়ে কারো আনুগত্য করা জায়েয নেই। এমনকি বাবা-মাও যদি গুনাহের কাজে সন্তান কে আদেশ করেন তবে তাদের কথা মান্য করাও জায়েয নেই। এ কারণে যদি তাদের থেকে সন্তানের আলাদা হওয়ার প্রয়োজন হয় তবে তাই করতে হবে।

প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী আপনি যেহেতু সুস্থ, সবল ও প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তি, তাই শরীয়তের উল্লেখিত মূলনীতি অনুসারে আপনার বাবার হারাম উপার্জন খাওয়া ও ব্যবহার করা আপনার জন্য কিছুতেই জায়েয হবে না।
অতএব, আপনার জন্য বাবার হারাম উপার্জন খাওয়া বা ব্যবহার করা থেকে সম্পূর্ণরূপে বেঁচে থাকা জরুরী। যৌথ সংসারে হারাম থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব না হওয়ার দরুন আপনি আলাদা হয়ে গিয়ে সঠিক কাজই করেছেন; এজন্য আপনি প্রশংসার দাবীদার।

সূত্র:

আল কুরআন সূরা আল মুমিনুন, আয়াত-৮১, সহীহ ইবনে হিব্বান: ৫/৩২৫, বুহুস ফিকাযায়া ফিকহিয়্যা: ১/৩৪৫, আপকে মাসায়েল আওর উনকা হল: ৬/১৮৬
في صحيح ابن جبان عن كعب ابن عجرة قال: قال النبى صلى الله عليه وسلم يا كعب ابن عجرة انه لا يدخل الجنة لحم ودم نينا على سحت والنار اولى به. وكذا فيه: ৪/৪৩২: لاطاعة في معصية الله.