বন্ধকী বস্তু থেকে উপকার হাসিল করা


[লিখেছেন jibaitunnoor, October 14, 2020 06:58 am ]

প্রশ্ন:

আমার বাবা কিছু টাকার প্রয়োজনে তিনি তার একটি জমিন একজন লোকের নিকট এভাবে বন্ধক দিলেন যে, ঐ লোক আমার বাবাকে বিশ হাজার টাকা দিয়ে আমাদের জমিন নিয়ে তা থেকে উপকৃত হতে থাকবেন। পরবর্তীতে যখন আমার বাবা তাকে টাকা ফেরত দিয়ে দিবে তখন সে ঐ জমিন ফিরিয়ে দিবে। এভাবে জমিন বন্ধক দেয়া-নেয়া জায়েয কি না?

উত্তর:

ঋণদাতার জন্য বন্ধকী জমি ভোগ করা সম্পূর্ণ রূপে না জায়েয। এটা মূলতঃ ঋণ প্রদান করে বিনিময়ে সুদ গ্রহণ করারই নামান্তর। সুতরাং উল্লেখিত পন্থায় জমি বন্ধক রেখে উহার ফসল ভোগ করা যেমনিভাবে বন্ধক গ্রহীতার জন্য নাজায়েয। তেমনিভাবে, বন্ধক দাতার জন্য এভাবে বন্ধক রাখাও না জায়েয। কারণ, এতে সে হারাম কাজের সহযোগিতা করছে, যা শরীয়তের দৃষ্টিতে সম্পূর্ণ হারাম।

তবে এরকম চুক্তি করতে চাইলে তা শরীয়ত সম্মত পদ্ধতিতে হালাল ভাবে করার সুযোগ আছে। যার দুটি পদ্ধতি হতে পারে।

প্রথমত:

উক্ত জমি ভাড়া বা লিজ হিসাবে প্রদান করবে। উদাহরণ স্বরুপ : স্থানীয় প্রচলন অনুযায়ী যদি ১০ কাঠা জমির বাৎসরিক ভাড়া আনুমানিক ৫ হাজার টাকা হয় এবং ভাড়া দাতার ২০,০০০ টাকার প্রয়োজন হয়, তাহলে সে ২০,০০০/= টাকার বিনিময়ে ৫ বৎসরের জন্য উক্ত জমি ভাড়া দিবে। অবশ্য, ভাড়া নির্ধারণের বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে উভয় পক্ষের সম্মতির উপর নির্ভরশীল।

কাজেই, পারস্পরিক সম্মতিক্রমে প্রয়োজনে ভাড়ার অংকটি স্থানীয় ভাড়ার হার থেকে কম-বেশীও হতে পারে। অতপর ভাড়ার মেয়াদ যখন শেষ হয়ে যাবে তখন ভাড়া দাতা জমি ফেরত নিয়ে নিবে। কিন্তু ভাড়া গ্রহীতা কোনরূপ টাকা ফেরত পাবে না। তবে ভাড়ার মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পূর্বে জমি ফেরত নিয়ে নিলে মেয়াদ অনুপাতে ভাড়া কর্তন করে অবশিষ্ট টাকা ভাড়া গ্রহীতা ফেরত পাবে।

দ্বিতীয় পদ্ধতি হল,

بيع با لوفاء – অর্থাৎ বন্ধক দাতা স্বীয় জমি বন্ধক গ্রহীতার নিকট বন্ধক না রেখে বরং সুনির্দিষ্ট মূল্যে বিনা শর্তে বিক্রি করে দিবে। বিক্রি করে দেয়ার পরপরই এ শর্ত করে নিবে যে, যখন আমি জমির মূল্য ফেরত দিব তখন আপনি আমার ঐ জমি ফেরত দিবেন।
উল্লেখ্য, এই পদ্ধতিটি অপারগ অবস্থায় প্রযোজ্য।

সূত্র:

সূরা মায়িদা: আয়াত-২, মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাক: ৮/২৪৪, এলাউস সুনান: ১৮/৬৪, রদ্দুল মুহতার: ১০/৮৩, বাদায়েউস সানায়ে: ৫/২১২
قال في الشامية ১০/৮৩: لا يحل له ان ينتفع بشيئ منه بوجه من الوجوه وان اذن له الراهن لانه اذن له في الربا لانه يستو في دينه كاملا فتبقى له المنفعة فضلا فيكون ربا وهذا امر عظيم
وفي جواهر الفتاوى ৩/৩৯৫: فقهاء كرام نے مروجہ رهن كے گناہ سے بچنے كے لئے بعض حيلوں كو جائز لكها ہے- اور وہ يہ ہيں بيع بالوفاء يعني راہن اپني زمين مرتہن كے پاس زباني طور پر د,گواہوں كے سامنے اس شرط پرفروخت كردے كہ جب ميں زمين كي قيمت آپ كو واپس كردونڱا تو آپ مجهے زمين واپس دے دينگے-